ইসলামী সমাজের নেতা কর্মীদের কারাগার থেকে জামিনে মুক্তি লাভের মাধ্যমে- মিথ্যার উপর সত্যেরই বিজয় হয়েছে।

islamisomaj

ইসলামী সমাজের নেতা কর্মীদের কারাগার থেকে জামিনে মুক্তি লাভের মাধ্যমে- মিথ্যার উপর সত্যেরই বিজয় হয়েছে।                                                                আমীর, ইসলামী সমাজ।

‘ইসলামী সমাজ’ এর আমীর হযরত সৈয়দ হুমায়ূন কবীর বলেছেন, বাংলাদেশসহ বিশ্বের সকল রাষ্ট্র “মানুষের নয়! সার্বভৌমত্ব, আইন-বিধান ও নিরংকুশ কর্তৃত্ব একমাত্র আল্লাহর” -এ মহা সত্যের পরিবর্তে  সমাজ ও রাষ্ট্র পরিচালনায় সার্বভৌমত্ব, আইন-বিধান ও কর্তৃত্ব মানুষের- এ মহা মিথ্যার ভিত্তিতে গঠিত ও পরিচালিত হওয়ার কারণেই বিশ্বের মানুষ দুর্নীতির রাহুগ্রাসে নিমজ্জিত এবং বিশ্বের সর্বত্র জঙ্গীবাদী তৎপরতা ও সন্ত্রাসসহ বহু রকম মানবতা বিরোধী অপতৎপরতা ক্রমে ক্রমে বৃদ্ধি পাচ্ছে তিনি বলেন, মানুষের সার্বভৌমত্ব, আইন-বিধান ও কর্তৃত্ব মূলোৎপাটন করে একমাত্র আল্লাহর সার্বভৌমত্বের ভিত্তিতে এবং তাঁরই রাসূল হযরত মুহাম্মাদ (সাঃ) এর প্রদর্শিত শান্তিপূর্ণ পদ্ধতিতে ইসলামের আইন-বিধান দ্বারা সমাজ ও রাষ্ট্র গঠিত ও পরিচালিত না হলে দুর্নীতি, জঙ্গীবাদ ও সন্ত্রাসসহ সকল মানবতা বিরোধী অপতৎপরতা মুক্ত সমাজ গঠিত হবে না। গণতন্ত্রের অধীনে নির্বাচন কিংবা সশস্ত্র লড়াই নয়! ঈমান ও ইসলামের দাওয়াতের মাধ্যমে সমাজ গঠন আন্দোলনই “সমাজ ও রাষ্ট্রে ইসলাম প্রতিষ্ঠায় ঈমানদারগণের রাষ্ট্রীয় শাসন ক্ষমতা লাভের একমাত্র পদ্ধতি- একথার ঊল্ল্যেখ করে তিনি বলেন, ইসলামী সমাজ” এর নেতা ও কর্মীগণ সকল মানুষের সার্বিক কল্যাণে সমাজ ও রাষ্ট্রে ইসলাম প্রতিষ্ঠায় শান্তিপূর্ণ কর্মসূচী গ্রহন করে ঈমান ও ইসলামের দাওয়াতের মাধ্যমে মানব রচিত ব্যবস্থার ভিত্তিতে গঠিত সমাজের বিপরীতে ইসলামী সমাজ গঠন আন্দোলন চালিয়ে যাচ্ছে। তিনি বলেন, শান্তিপূর্ণ কর্মসূচীর অংশ হিসাবে- গত ৩ ফেব্রুয়ারী ২০১৭ ইং ঈমান ও ইসলামের নীতি ও আদর্শ প্রতিষ্ঠায় জঙ্গীবাদসহ সকল প্রকার সন্ত্রাস ও দুর্নীতির বিরুদ্ধে জাতীয় সচেতনতা সৃষ্টির লক্ষ্যে চট্টগ্রাম মহানগর, পাহাড়তলী থানাধীন মৌসুমী আবাসিক এলাকায় ইসলামী সমাজের সদস্য, জামাল উদ্দীনের ভাড়া বাসায় অনুষ্ঠিত আলোচনা বৈঠক থেকে ইসলামী সমাজ এর ২৪ জন নেতা কর্মীকে চট্টগ্রাম পুলিশ প্রশাসন গ্রেফতার করে হয়রানীমূলক মিথ্যা মামলা দিয়ে জেল হাজতে পাঠায়- এ ঘটনাটি মর্মান্তিক ও দুঃখজনক। দেশের আইন অনুযায়ী হাইকোর্ট থেকে জামিন প্রাপ্ত হয়ে গত ৬ এপ্রিল চট্টগ্রাম কারাগার থেকে মুক্তি পেয়ে জেল-গেটে আসার সাথে সাথে ১৯ জন নেতাকর্মীকে আটক করে পাহাড়তলী থানায় নিয়ে পুণরায় সম্পূর্ণ মিথ্যা অভিযোগে পর পর দুটো মামলা দিয়ে জেল হাজতে আটক রাকে। কিন্তু আল্লাহর বিশেষ রহমতে ষড়যন্ত্রমূলক একটি মামলা নি¤œ কোর্টে নাকচ হয়ে যায় এবং দুটো মামলায় ইতিমধ্যে ইসলামী সমাজের ২৩ জন নেতা কর্মী কারাগার থেকে জামিনে মুক্তি লাভ করে এবং বাকী একজন শীগ্রই কারাগার থেকে বের হবে ইন্শাআল্লাহ। তিনি বলেন, আল্লাহর বিশেষ সাহায্য, রহমত ও ইচ্ছায় মিথ্যার উপর সত্যের বিজয় হয়েছে। আজ এক বিবৃতিতে তিনি দেশবাসী সকলকে মানুষের সার্বভৌমত্ব, আইন-বিধান ও কর্তৃত্ব অস্বীকার ও অমান্য করে সমাজ ও রাষ্ট্র সহ জীবনের সকল ক্ষেত্রে সার্বভৌমত্ব, আইন-বিধান ও নিরংকুশ কর্তৃত্ব একমাত্র আল্লাহর মেনে মহাসত্যের ভিত্তিতে জীবন গঠন ও পরিচালনা করে আল্লাহর সন্তুষ্টি অর্জনের এবং ইসলাম প্রতিষ্ঠায় ইসলামী সমাজে শামিল হয়ে ঈমানী ও নৈতিক দায়িত্ব পালনের আহ্বান জানান। “ইসলামী সমাজ” এর নেতা, কর্মী, সদস্য ও সদস্যা ভাই-বোনদের সকলকে তিনি চরম ধৈর্য্য ও ক্ষমার নীতিতে অটল থেকে নিজেদের সময় ও অর্থ কুরবানি করে ঈমান ও ইসলামের দাওয়াত দল মত নির্বিশেষে সকলের নিকট  পৌছিয়ে দেয়ার উদাত্ত আহ্বান জানান এবং সরকার ও প্রসাশনের সাথে জড়িত সকলকে ইসলামী সমাজের নেতা কর্মীদেরকে হয়রানী না করে সমর্থন ও সহযোগীতা করার অনুরোধ করেন। 

মানবতার কল্যাণে বার্তাটি শেয়ার করুন-

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *