স্বাধীনতার সুবর্ন জয়ন্তীতেও মানুষ স্বাধীনতার সুফল থেকে বঞ্চিত। আমীর, ইসলামী সমাজ।

ইসলামী সমাজের আমীর হযরত সৈয়দ হুমায়ূন কবীর বলেছেন, সমাজ ও রাষ্ট্র পরিচালনায় একমাত্র সৃষ্টিকর্তা আল্লাহর সার্বভৌমত্বের ভিত্তিতে তাঁরই আইন-বিধান প্রতিষ্ঠিত না হওয়ার কারণেই দেশ স্বাধীনের সুবর্ন জয়ন্তীতেও দুর্নীতি, সন্ত্রাস, উগ্রতা, মানবতা বিরোধী অপরাধ ও শোষণ মুক্ত সমাজ গঠন হয়নি, স্বাধীনতার সুফল মানুষ পায়নি। মানুষের সার্বভৌমত্ব এবং মানব রচিত ব্যবস্থা চরম দুর্নীতি একথার উল্লেখ করে তিনি বলেন, সমাজ ও রাষ্ট্র পরিচালনায় সকল ধর্মের লোকদের জন্য যার যার ধর্মীয় অনুশাসন মেনে চলার সুযোগ রেখে একমাত্র আল্লাহর সার্বভৌমত্বের ভিত্তিতে তাঁরই আইন-বিধান মানুষের জীবনে প্রতিষ্ঠিত হলেই দুর্নীতি, সন্ত্রাস, উগ্রতা, জঙ্গীবাদ, মানবতা বিরোধী অপরাধ ও শোষণ মুক্ত সমাজ গঠিত হবে।

ইসলামী সমাজের সদস্য মাস্টার মোঃ তাজুল ইসলামের সভাপতিত্বে আজ ২৫ শে মার্চ ২০২১ ইং বৃহস্পতিবার বিকাল ৩ ঘটিকায় ময়মনসিংহ মহানগর টাউনহল এলাকাধীন এডভোকেট তারেক স্মৃতি অডিটরিয়াম হলরুমে “একমাত্র আল্লাহ্ রাব্বুল আলামীনের সন্তুষ্টি অর্জনে ঈমানদার সৎকর্মশীল লোক গঠনের লক্ষ্যে” অনুষ্ঠিত আলোচনা সভায় ইসলামী সমাজের আমীর হযরত সৈয়দ হুমায়ূন কবীর বলেন, স্বৈরাচারী পাকিস্তান সরকারের শোষন, জুলুম-অত্যাচার ও উৎপীড়ন থেকে মুক্ত হয়ে দুর্নীতি, সন্ত্রাস, উগ্রতা, মানবতা বিরোধী সকল অপতৎপরতা ও শোষণ মুক্ত সমাজ গঠনের মাধ্যমে মানুষের জীবনে সুশাসন ও ন্যায় বিচার  প্রতিষ্ঠা করে মানবাধিকার নিশ্চিত করার লক্ষ্যেই স্বাধীনতা সংগ্রাম শুরু হয় এবং দীর্ঘ ৯ মাস পাকিস্তানী হানাদার বাহিনীর বিরুদ্ধে সশস্ত্র লড়াই করে বহু মানুষের রক্ত ও মা, বোনদের ইজ্জতের বিনীময়ে ১৯৭১ সালেরই ১৬ ডিসেম্বর আমরা স্বাধীন বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠা করি। কিন্তু স্বাধীনতা অর্জনের পর থেকে এ পর্যন্ত বিভিন্ন সময়ে যারাই রাষ্ট্রীয় শাসন ক্ষমতায়  ছিলেন এবং বর্তমানেও যারা আছেন, তাদের কেউ স্বাধীনতার মূল লক্ষ্য বাস্তবায়ণে যথাযথ দায়িত্ব পালন করেনি, বরং ক্ষমতাসীন সকল সরকার জনগণের তহবীল- রাষ্ট্রীয় সম্পদ লুটপাট করে তাদের স্বার্থ হাছিল করেছেন।

সংগঠনের আমীর আরও বলেন, মানব রচিত ব্যবস্থা গণতন্ত্রের দোহাই দিয়ে বর্তমান সরকার ও অতীতের সকল সরকার এবং তাদের মদদপুষ্ট সকলেই সাধারণ জনগণের অধিকার হরণ করে অর্থ সম্পদের প্রাচুর্য্য গড়েছেন। গণতন্ত্রসহ সকল মানব রচিত ব্যবস্থাই মূলত দূর্নীতি একথার উল্লেখ করে তিনি বলেন, আল্লাহর নির্দেশিত ও তাঁরই রাসূল হযরত মুহাম্মাদ (সাঃ) প্রদর্শিত শান্তিপূর্ণ পদ্ধতিতে ইসলামের আইন-বিধান প্রতিষ্ঠাই দুর্নীতি, সন্ত্রাস, উগ্রতা, জঙ্গীবাদসহ মানবতা বিরোধী সকল অপতৎপরতা ও শোষন মুক্ত সমাজ গঠনের একমাত্র উপায়। দুর্নীতি, সন্ত্রাস, উগ্রতা, জঙ্গীবাদসহ মানবতা বিরোধী সকল অপতৎপরতা ও শোষন মুক্ত সমাজ গঠনের লক্ষ্যেই ইসলামী সমাজ আল্লাহর নির্দেশিত ও তাঁরই রাসূল হযরত মুহাম্মাদ (সাঃ) প্রদর্শিত পদ্ধতিতে শান্তিপূর্ণ কর্মসূচির মাধ্যমে ইসলাম প্রতিষ্ঠায় একদল ঈমানদার সৎকর্মশীল লোক গঠনের আন্তরিক প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। দল-মত নির্বিশেষে সকলকে তিনি সময় ও অর্র্থ কুরবানীর মাধ্যমে ইসলাম প্রতিষ্ঠার এ শান্তিপূর্ণ প্রচেষ্টায় শামিল হওয়ার আন্তরিক আহ্বাণ জানান।

ইসলামী সমাজের কেন্দ্রীয় নেতা জনাব সোলায়মান কবীরের পরিচালনায় অনুষ্ঠিত গুরুত্বপূর্ণ আলোচনা সভায় আরো বক্তব্য রাখেন জনাব- মুহাম্মাদ ইয়াছিন, মুহাম্মাদ ইউসুফ আলী, আমীর হোসাইন, নুরুদ্দীন আহমেদ ও সেলিম মোল্লা প্রমুখ।

মানবতার কল্যাণে বার্তাটি শেয়ার করুন-

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *